Tagged: প্রাত্যাহিক জিজ্ঞাসা

মার্গারেট থ্যাচারকে কেন লৌহমানবী বলা হতো?

jiggasha

বিভিন্ন সূত্র থেকে জানা যায় যে, মার্গারেট থ্যাচারের ‘লৌহ মানবী’ খেতাবটুকু তার কর্মের জন্য নয়, তার কঠোর বাগ্মীতার জন্যই দেওয়া হয়েছিল। সেটি ইতিবাচক অর্থে নয় নেতিবাচকভাবেই দেওয়া হয়েছিল। যা হোক, তাকে কখন কীভাবে কেন এবং কে এই খেতাব দিয়েছিল সেটি আজ আর অজানা থাকার বিষয় নয়। মোট কথা হলো, সোভিয়েত রাশিয়ার গণমাধ্যম থেকে তিনি এই খেতাব পেয়েছিলেন, যার কারণে পরবর্তিতে তিনি কৃতজ্ঞতাও প্রকাশ করেছিলেন।

তো দেখি এবার, তিনি কী কথা বলতেন, যার কারণে লৌহ মানবী বা আইরন লেডি’র শব্দযুগল তার নামের সাথে যুক্ত হয়।

 

————-

আমি ভাগ্যবান ছিলাম না, ভাগ্যকে অর্জন করেছি।

আমি অস্বাভাবিক ধৈর্য্যশীল, এই শর্তে যে শেষ মুহূর্তে আমি নিজের সুযোগটি পাই।

জনতাকে অনুসরণ করবেন না, জনতাকে বরং আপনাকে অনুসরণ করতে দিন।

রাজনীতিতে যদি কাউকে দিয়ে কিছু বলাতে চান, তবে একজন পুরুষকে বলুন। যদি কিছু করাতে চান, তবে একজন নারীকে বলুন।

রাজনীতিতে একটি সপ্তাহ বিশাল সময়।

সাধারণত দশ সেকেন্ডের মধ্যেই আমি একজন মানুষ সম্পর্কে সিদ্ধান্ত নেই এবং খুব কমই সেটি বদলাই।

অবশ্যই এটি পুরান কাহিনি। সত্য তো একই পুরান কাহিনি।

একটি যুদ্ধকে জয় করার জন্য আপনাকে একাধিকবার যুদ্ধ করতে হতে পারে।

কঠোর পরিশ্রম ছাড়া কেউ শীর্ষস্থানে পৌঁছেছে এমন কাউকে আমি জানি না। এটিই উপায়। পরিশ্রম আপনাকে সবসময় শীর্ষস্থানে না নিলেও অন্তত নিকটে গিয়ে পৌঁছাতে পারবেন।

আপনার কাজের পরিকল্পনা করুন, আজকের এবং প্রতিদিনের। তারপর পরিকল্পনাকে কাজে রূপ দিন।

প্রত্যেক নেতার মধ্যে কিছু পরিমান লোহা থাকা উচিত। তাই আমাকে যে ‘লৌহ মানবী’ বলা হয়, সেটি আলাদা কিছু নয়।

————-

 

‘আমি ভাগ্যবান ছিলাম না, ভাগ্যকে অর্জন করেছি।’ এই কথাটি যে কতটা সত্য ছিল, সেটি থ্যাচারের জীবন (১৩ অক্টোবর ১৯৩৫ – ৮ এপ্রিল ২০১৩) থেকে বুঝা যায়। তিনি ১১ বছরেরও বেশি সময় ব্রিটেনের শাসক ছিলেন। ছিলেন নন্দিত এবং নিন্দিতও। অনেকের প্রশ্ন, এত নিন্দিত থাকার পরও কীভাবে এত বছর তিনি যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী থাকলেন। যোগাযোগ প্রযুক্তির এই যুগে, তার জীবন কাহিনি আজ সবার জন্য উন্মুক্ত। আমাদের জীবন থেকেও একই সত্যকে বুঝতে পারি। সত্য সবসময়ই পুরান এবং পরিবর্তনহীন। এটিও থ্যাচারের কথা। এটি সবারই কথা। তিনি সত্যই এক লৌহ মানবী ছিলেন।

 

 


উক্তিগুলো বিভিন্ন থেকে সংগৃহীত এবং লেখক কর্তৃক বাংলায় অনূদিত।

Advertisements

কোন দেশ কি ইচ্ছে করলেই নোট বা মুদ্রা প্রস্তুত করতে পারে?

jiggasha

 

কোন দেশ কি ইচ্ছে করলেই নোট বা মুদ্রা প্রস্তুত করতে পারে? এরজন্য কী নিয়ম প্রযোজ্য?


 

ইচ্ছে করলেই বা প্রয়োজন হলেই কোন দেশ বা দেশের সরকার মুদ্রা/নোটের প্রচলন করতে পারে না। নির্দিষ্ট পরিমাণ নিরাপত্তা তহবিল সংরক্ষণের পর একটি দেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংক মুদ্রা প্রকাশ করে। এটি একটি দেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংকের অন্যতম প্রধান কাজ। অথবা বলা যায়, এটি কেন্দ্রীয় ব্যাংকের একক অধিকার।

 

যেসব নিয়ম প্রযোজ্য:

নোট/মুদ্রার বিপরীতে আইন অনুযায়ি সোনা, রূপা ও বৈদেশিক মুদ্রা সংরক্ষণ করে কেন্দ্রীয় ব্যাংক নোট ইস্যু করে। দেশের অর্থনৈতিক চাহিদার ওপর ভিত্তি করে নোট ইস্যু করা হয়। নিয়ম অনুযায়ি নোট/মুদ্রার মূ্ল্যের শতকরা ত্রিশ ভাগ স্বর্ণ, রৌপ্য বা বৈদেশিক মুদ্রা সংরক্ষণে (রিজার্ভ) রাখতে হয়।

 

বাংলাদেশ যা করে:

নোটের বিপরীতে বাংলাদেশ ব্যাংক নিরাপত্তা হিসেবে বৈদেশিক মুদ্রা রিজার্ভ রাখে, কারণ সংরক্ষণের জন্য পর্যাপ্ত স্বর্ণ-রৌপ্য বাংলাদেশের নেই।

 


সূত্র: ডায়েরির পাতা থেকে, ১৮ জানুয়ারি ২০০১।

জন আব্রাহামকে কেন আমাদের অনুসরণ করা উচিত?

johnabraham_fitness

 

জন আব্রাহামকে কেন আমাদের অনুসরণ করা উচিত?


 

ভারতীয় সিনেমা স্টার জন অব্রাহামের প্রতি বিন্দুমাত্র আগ্রহ আগে আমার ছিলো না। চলচ্চিত্রাভিনেতা হিসেবে এখনও নেই। জন ছাড়া ভারতীয় চলচ্চিত্রে আরও অনেকেই আছেন যাদেরকে চলচ্চিত্রাভিনেতা হিসেবে আমার পছন্দ। জন অনেকেরই হয়তো প্রিয় অভিনেতা নন। কিন্তু প্রেরণাদায়ক ফিটনেস কোচ এবং সুস্বাস্থ্যের প্রতীক হিসেবে জন অব্রাহাম অন্যদের চেয়ে আলাদা।

 

 

কথাগুলো একটু পড়ুন:

ফিট থাকুন, ফিট অবস্থায় মৃত্যুবরণ করুন। পরিশ্রম অস্থায়ি, গৌরব চিরস্থায়ি। ব্যায়াম আমার নেশা!

প্রতি রাতে আমি পার্টি করি না, অপচয় করি না, আমি বোতলের কর্ক খুলি না। আমি ব্যায়াম করি: দেহের ভারসাম্য ঠিক রেখে আমি নিজেকে সামনে ঠেলি, তারপর আরও কঠিনভাবে ধাক্কা দেই এই দেহকে, মিউজিক ছেড়ে দেই, ঘাম ঝড়াই, দেহকে কষ্ট দেই; ব্যথা আমার পছন্দ কিন্তু শুকনো দেহ অপছন্দ।

আমি বিরক্তির কারণ হই না, আমার সমালোচনা করবেন না: আপনারা ক্লাবে যেতে পারেন, জীবনকে চকচকে করে তুলতে পারেন; জিমের অন্ধকারই আমার ভালো লাগে, সারাদিন, প্রতিদিন।

 শুধু সুস্থরাই (ফিট) বেশিদিন বেঁচে থাকবে।

 

যখন জানলাম কথাগুলো ভারতীয় চলচ্চিত্রাভিনেতা জন অব্রাহামের, তখনই অবহেলায় আমার মন ভরে গেলো। ‘ও আচ্ছা’ ভুতের মুখে রাম নাম!  আমার দৃষ্টি চলে গেলো তার অভিনীত সিনেমাগুলোতে। বিভিন্ন মুভিতে তার সৌষ্ঠব দেহ এবং স্থিরচিত্রে তার উজ্জ্বল সুস্থতার চিত্র আমার কল্পনায় ভেসে ওঠলো।

সুস্থ দেহ কে না প্রত্যাশা করে? একটি নিরোগ দেহ কে না চায়? সুস্থতার ওপরে আর কী সুখের বিষয় থাকতে পারে?

 

 

আরও কিছু কথা:

“আমি অনেকটাই অজ্ঞেয়বাদী, দেহই আমার ধর্ম। দেহের চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ আমার কাছে কিছুই নেই, তাই আমি ব্যায়াম করি। আমার উদ্দেশ্যে হলো সিক্স-প্যাক নিয়ে বাঁচা এবং সিক্স-প্যাক নিয়েই মৃত্যুবরণ করা।”

“আমার ফিটনেস মন্ত্রটি তিনমুখী: ভালো খাবার, ভালো ঘুম এবং পরিমিত ব্যায়াম।”

ফিট দেহ আর সুস্থ মনই তার দিবারাতের উপাসনা- ফিটনেসই জন অব্রাহামের ধর্ম। ব্যাপারটি পুরোপুরি অনুকরণীয় না হলেও তার কিছু বিষয়কে এড়িয়ে যাবার সুযোগ নেই!

 

ভালো কথা, আমি (এই পোস্টের লেখক) কোন ফিটনেস এক্সপার্ট  নই! তবে ‘আনফিটনেস অাবাটার’ বলতে পারেন! তবে একটি সুস্থ দেহ খুবই চাই।

 

 

যারা আরও জানতে যান:

ফিটনেস টিপস এবং জন অব্রাহামের আত্মসাক্ষ্য।

জন অব্রাহামের ফিটনেস/ ডায়েট চার্ট

‘আমি একজন মাছ-খাওয়া সব্জিভোজী’!

 

সূত্র: বিভিন্ন সংবাদ ও গুজবের মাধ্যম। ছটি গ্র্যাবহাউজ ডট কম থেকে নেওয়া।

 

 


The ideology that John Abraham tries to promote:

  1. Live fit… die fit
  2. Pain is temporary… pride is forever
  3. WORKING OUT IS MY DRUG
  4. I don’t party every night, I don’t get wasted, I don’t pop bottles 
  5. I WORK OUT… I push my body to its limit, then I push harder, 
  6. I blast my music, I sweat, I ache, I love pain and I hate skinny.
  7. I don’t bother you, DON’T JUDGET ME, you can have the clubs and and the flashy life
  8. I’ll take the darkness of the gym, all day, everyday… 
  9. Only the fit survive 

 

হুন্ডি কেন অবৈধ?

jiggasha

 

 

হুন্ডি কি?  হুন্ডি প্রথার উৎপত্তি কোথা থেকে? এটি কেন অবৈধ?


 

সংক্ষিপ্ত সংজ্ঞা:

হুন্ডি একটি  নীতিবহির্ভূত এবং দেশের আইন দ্বারা নিষিদ্ধ অপ্রাতিষ্ঠানিক অর্থ হস্তান্তর/স্থানান্তর ব্যবস্থা। Bill of Exchange বা বিনিময় বিল নামেও পরিচিত। বাণিজ্যিক লেনদেন এবং ঋন আদান-প্রদানের ক্ষেত্রে ব্যবহৃত হতো। এখনও হয়। তবে তা অবৈধভাবে এবং অবৈধ উদ্দেশ্যে।

 

বিস্তারিত সংজ্ঞা:

বাণিজ্যিক আদান বা ঋণ সশ্লিষ্ট লেনদেনের ক্ষেত্রে ব্যবহৃত লিখিত  এবং শর্তহীন দলিল, যার মাধ্যমে এক ব্যক্তি থেকে অন্য ব্যক্তির কাছে নির্দেশিত পরিমাণ টাকা লেনদেন হয়। এই ব্যবস্থা মুগল আমলে পরিচিত লাভ করে, কিন্তু ব্রিটিশ আমলে জনপ্রিয়তা পায়। এখনও প্রবাসী চাকুরিজীবীরা একে আড়ালে ব্যবহার করছেন।

বর্তমান বিশ্বের ব্যাংকিং পদ্ধতি অনুসরণ করে হয় না বলে সংশ্লিষ্ট দেশের সরকার রাজস্ব আয় থেকে বঞ্চিত হয়। তাই হুন্ডি ব্যবস্থাকে অবৈধ হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে।

 

ইতিহাস সূত্র:

মুগল আমলে প্রতিষ্ঠিত অপ্রাতিষ্ঠানিক অর্থ লেনদেন ব্যবস্থাটি ব্রিটিশ উপনিবেশ আমলে বিশেষ জনপ্রিয়তা পায়। তারা একে দেশীয় ব্যবস্থা বলে মেনে নেয়। তবে বৈধতা দেবার জন্য রানীর সিলসহ স্ট্যাম্প ব্যবহারের প্রচলন করে।

Hundi Stamp (British India)

“হুন্ডি অপ্রাতিষ্ঠানিক ব্যবস্থার অংশ হওয়ার কারণে এর আইনগত অবস্থান নেই এবং সরকারের আওতাধীন আলোচনার কোন বিধিও নেই। হুন্ডি সাধারণত বিনিময় বিল হিসেবে বিবেচিত হলেও তা প্রায়শ দেশজ ব্যাংকার্স দ্বারা ইস্যুকৃত পে-অর্ডার চেকের সমমান হিসেবে ব্যবহূত হয়। সাম্রাজ্যের বিভিন্ন বাণিজ্যিক কেন্দ্রগুলিতে শাখা অফিস অথবা প্রধান ব্যাংকিং হাউসগুলিতে কুঠির মাধ্যমে হুন্ডি ব্যবসা চলত। বলা হয়, বাণিজ্যিক ভারতের সকল অংশে জগৎ শেঠের ব্যাংকের শাখা অফিস ছিল। কিন্তু বাংলায় উপনিবেশিক শাসন প্রতিষ্ঠার প্রভাবে তাঁদের আর্থিক শক্তির পতন শুরু হয় এবং আঠারো শতকের শেষে দেউলিয়া হয়ে পড়ে।” [বাংলাপিডিয়া]

 

সংবাদপত্রে দৃষ্টান্ত:

“গুলশান ও শোলাকিয়ার হামলার অর্থ এসেছিল হুন্ডির মাধ্যমে”। দৈনিক প্রথম আলো, ১৯ সেপটেম্বর

 


সূত্র: বাংলাপিডিয়া, বেশতো এবং হেল্পফুলহাব ডট কম। ব্রিটিশ সময়ের হুন্ডির ছবিটি ইন্ডিয়াস্ট্যাম্প ডট ব্লগস্পট ডকম থেকে।

‘বয়কট’ শব্দটি যেভাবে ‍ব্রিটিশ ঔপনিবেশের কালো অধ্যায়কে তুলে ধরে…

jiggasha

‘বয়কট’ শব্দটি কীভাবে ব্রিটিশদের কালো অধ্যায়কে উন্মুচিত করে? 


 

চার্লস সি বয়কট (১৮৩২-১৮৯৭) ছিলেন একজন ইংরেজ খাজনা আদায়কারী, তাদের ভাষায় এস্টেট ম্যানেজার। তার দায়িত্ব ছিল আইরিশ কৃষকদের ক্ষুদ্র আয় থেকে উচ্চহারে খাজনা আদায় করা। কাজটি ছিল কঠিন, কারণ কৃষকদের আয়ের তুলনায় খাজনা ছিল অত্যন্ত বেশি। কৃষকরা এক সময় একত্রিত হয়ে মি. বয়কটকে একঘরে করে দেয়। সেখান থেকে ‘বয়কট’ শব্দটির উৎপত্তি।

 

আভিধানিক অর্থ: ইংরেজি ও বাংলা

boycott:  withdraw from social/commercial relations (with a country/organization/person).  Oxford Dictionary.

boycott:  বর্জন/একঘরে করা; কোন ব্যক্তি, গোষ্ঠি বা দেশের সাথে সামাজিক ও অর্থনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করা। বাংলা একাডেমির অভিধান।

 

যেভাবে মি. বয়কট ‘বয়কট’ হলেন:

মি. বয়কটের নিষ্ঠুর খাজনা আদায়ের অত্যাচার থেকে আইরিশ কৃষকরা বাঁচার জন্য উপায় খুঁজতে থাকে। কিন্তু বিশেষ কোন সমাধান তারা পায় নি। মি. বয়কট তাদেরই সমাজে বাস করে তাদেরকেই শোষণ করতেন।

অবশেষে কৃষকরা একদিন বিদ্রোহী হয়ে ওঠে বয়কটের বিপক্ষে। তাকে সমাজ থেকে বিচ্ছিন্ন করে দেবার চেষ্টা করে। তাতেই তারা ক্ষান্ত হলো না, তাদের এলাকা থেকে বয়কট যেন কোন কিছু কিনতে না পারে, সে বিষয়ে সকলে ঐক্যবদ্ধ হলো। একসময় বয়কট তার জমিতে কাজ করার জন্য বা তার ফসল কাটার জন্য দিনমুজুরও পেলেন না।

বয়কটকে এভাবে সামাজিক ও অর্থনৈতিকভাবে একঘরে করে দেবার ঘটনা থেকেই ইংরেজি শব্দ ভাণ্ডারে বয়কট/boycott শব্দটি সংযোজিত হয়। এর অর্থ হলো সামাজিক ও অর্থনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করা। অর্থাৎ একঘরে করা।

 

বয়কট শব্দের প্রচলন যেভাবে শুরু হলো:

মূলত ‘বয়কট’ হলো ইংল্যান্ডি ব্যবহৃত পারিবারিক উপাধি। জিওফ্রি বয়কট নামে আরেকজন বয়কট আছেন, যিনি বিখ্যাত হয়েছিলেন ক্রিকেটার হিসেবে। জিওফ্রি বয়কট (১৯৬২-১৯৮৬) হলেন প্রথম ব্রিটিশ যিনি টেস্ট ক্রিকেটে ৮০০০ রানের মালিক। (ডিকশনারি ডট কম)

সমসাময়িক সংবাদমাধ্যমগুলো তাৎক্ষণিকভাবে শব্দটি লুফে নেয় এবং ব্যবহার করতে শুরু করে। পরবর্তিতে জাপানি ভাষায়ও ‘বয়কটো’ শব্দটি প্রচলিত হয়।

আমাদের বাংলাদেশেও এখন বয়কট শব্দটিকে আর অনুবাদ করতে হয় না। বাংলা লেখায়ও কোন ব্যাখ্যা ছাড়াই এটি ব্যবহৃত হয়।

 

 


সূত্র: ১৬/জানু/১৯৯৮, ডায়েরি থেকে। বয়কটের ছবিটি হিস্টরিআয়ারল্যান্ড ডটকম থেকে নেওয়া।