আকর্ষণীয় হবার ৩৬ উপায়! (সংগৃহীত)

আকর্ষণীয় হতে চায় না এমন কেউ নেই।  যে প্রাকৃতিকভাবেই আকর্ষণীয়, সেও আকর্ষণীয় হতে চায়। এমনকি যে বলে, আমার ওসবে আগ্রহ নেই, সেও চায়। কিন্তু কীভাবে আমি আকর্ষণীয় হবার ৩৬ উপায় পেলাম এবং কেনই এখানে হাজির করলাম, তা না বলে পারছি না।  একটি প্রবন্ধের জন্য কিছু উপাত্তের খোঁজ করতে গিয়ে একটি অসম্ভব চমৎকার ব্লগসাইটের দেখা পেলাম। নাম তার Live Bold and Bloom। নামেই অনেক কিছু পাওয়া যায়।  তো চোখ বুলাতে গিয়ে কিছু আই-ক্যাচিং বিষয়ে দৃষ্টি পড়লো। পড়ে চমৎকৃত হয়েছি। অনেক বিষয়েই নিজের চিন্তার সাথে মিল পেয়েছি। তাই বাংলা ভাষায় রূপান্তর করে আটকে রাখার সিদ্ধান্ত নিলাম। পাঠকদের কারও কারও ভালো লাগতেও পারে।  পুরোপুরি অনুবাদ করি নি, কনটেক্চুয়ালাইজ করেছি।

  1. নিজস্ব কিছু আদর্শ স্থির করুন।  নিজের মূল্যবোধ, পছন্দ-অপছন্দ, নিজের সীমাবদ্ধতা, নীতিবোধ এবং নিজের আগ্রহের বিষয়গুলো স্থির করে নিন। তাতে সহজেই অন্যের আদর্শ/দর্শনকে চোখ বন্ধ করে মেনে নিতে হবে না।
  2. নিজের মূল্যবোধের সাধে তুলনা না করে কোনকিছু সরাসরি গ্রহণ করবেন না।  স্বীকৃতি পাবার আশায় অন্যের মতামত দ্বারা পরিচালিত হবেন না।  সেটাই গ্রহণ করুন, যা আপনার কাছে গুরুত্বপূর্ণ এবং মূল্যবান।
  3. নিজের বিচারবুদ্ধির ওপর ভরসা করুন এবং যাচাই করে গ্রহণ করুন।  নিজের পছন্দ ও উপভোগের বিষয়টি পাবার জন্য চেষ্টা করুন, দু’একবার ব্যর্থ হলেও।
  4. মানুষ যেরকম, তাকে সেভাবেই গ্রহণ করুন।  অন্যকে বিচার করা এবং সমালোচনা করা কমিয়ে দিন। মানুষের দুর্বলতার চেয়ে সবল দিকের প্রতি মনোযোগ দিন।  নিজেকে নিঃশেষ করে না দিয়ে কঠিন মানুষের সাথে কাজ করতে শিখুন।
  5. আন্তরিকভাবেই অন্যের কথা শুনুন।  শুধু শোনা এবং বোঝা নয়, তার চেয়েও বেশিকিছু করুন।  তাদেরকে বুঝতে দিন যে, আপনি তাদের কথাকে উপভোগ করছেন।  (অবশ্যই, পরিস্থিতি সেরকম হলে।)
  6. জীবনের জটগুলোকে খুলে দিন।  সততাকে ফিরিয়ে আনুন।  অন্যকে ক্ষমা করে দিন, অথবা অন্যের কাছে ক্ষমা চেয়ে নিষ্পত্তি করুন। এসব বিষয় নিয়ে নিজের শক্তির অপচয় করবেন না।
  7. স্বাস্থ্যসম্মত অভ্যাস গড়ে তুলুন।  প্রতিদিন কিছু ব্যায়াম করুন এবং স্বাস্থ্যসম্মত খাবার খান।  আপনার স্বাস্থ্যকে সাপোর্ট দিন, আবেগকে নয়। কাউকে আকর্ষণ করার জন্য নয়, নিজেকে শ্রদ্ধা করছেন বলেই এটি করুন।
  8. ঘটনাকে আপনিই সম্পন্ন করুন। কারও অপেক্ষা নয়। সামনের কাজটিতে নিজেই হাত দিন। আপনিই হোন প্রেরণাদায়ী ও অনুঘটক। আপনার উৎসাহ সকলে দেখুক।
  9. শুধু মুখে নয় কাজেও দেখান যে, অন্যকে আপনি গুরুত্ব দিচ্ছেন।  অন্যরা কেন আপনার কাছে গুরুত্বপূর্ণ এটি তাদেরকে দেখান।
  10. মানুষের শ্রেষ্ঠ রূপটিতে আপনার দৃষ্টি দিন।  অন্যরা যেমন আছে শুধু সে বিষয়টিতে আবদ্ধ না থেকে তারা ‘কী হতে পারে’ সেটিতে মনযোগ দিন।  সৌহার্দ্যের সাথে এই দর্শনটি প্রয়োগ করুন।
  11. আপনার চাহিদার বিষয়টি খেয়াল রাখুন। দেখে নিন সম্পর্কের কোন বিষয়টি আপনার জন্য মূল্যাবান এবং গুরুত্বপূর্ণ। প্রয়োজন ছাড়া যোগাযোগ করবেন না।
  12. গঠনমূলক কথা বলুন।  আপনার কথায় প্রেরণা, উন্নয়ন, উৎসাহ ইত্যাদি শব্দ ব্যবহার করুন।  ‘গঠনমূলক সমালোচনাও’ করবেন না।
  13. হাসুন সহজেই।  নিজেকে হালকা রাখুন।  জীবনকে এত কঠিনভাবে নেবেন না। মজা করার চেষ্টা করুন এবং মজার বিষয় খুঁজুন।
  14. গসিপিং ও পেছনে কথা বলা বন্ধ করুন। প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে অন্যের সমালোচনা করা বন্ধ করুন।
  15. অভিযোগ নয়, অনুরোধ করুন।  কারও নিকট থেকে কিছুর দরকার হলে সরাসরি চান। অভিযোগ থাকলেও সেটি অনুরোধের আকৃতিতে প্রকাশ করুন।
  16. সরাসরি পরিস্থিতির মোকাবেলা করুন।  কোন কিছুতে অসন্তুষ্টির সৃষ্টি করলে সেটি সহ্য করবেন না। নরমভাবে কিন্তু সুস্পষ্টভাবে নেতিবাচক বিষয়ের নিষ্পত্তি করুন।
  17. বিতর্ক এড়িয়ে চলুন।  অনুকূল পরিস্থিতি না থাকলে কথা বাড়াবেন না, হেসে এড়িয়ে চলুন।
  18. চাইলেই সাহায্য করুন। মনে করবেন না যে, কেউ আপনার সাহায্য চায় অথবা আপনি তার ভালো বুঝতে পারেন। সঙ্গে থাকুন, কিন্তু চাইলেই কেবল সাহায্য দিন।
  19. আন্তরিকভাবে খবর নিন, কিন্তু দূরত্ব বজায় রাখুন।  কারও সমস্যায় আপনি গভীরভাবে সমব্যাথী এটি তাদেরকে বুঝতে দিন, কিন্তু তার সমস্যায় আপনি ডুবে যাবেন না।
  20. অন্তর দিয়ে দেখুন, দৃষ্টি দিয়ে নয়।  বাহ্যিক বিষয়কে পাশ কাটিয়ে ভেতরের মানুষটি দেখুন।  পোশাক-পরিচ্ছদ, অর্থ প্রতিপত্তি এসব কিছুই নয়।  আসল মানুষটিকে দেখুন।
  21. অন্তরে ‘না’ থাকলে বাইরে ‘হ্যাঁ’ বলবেন না। ইচ্ছার বিরুদ্ধে হ্যাঁ বললে ভেতরে অসন্তোষ থেকেই যাবে।  তখনই হ্যাঁ বলুন যখন আপনি সম্পূর্ণ রাজি।
  22. আপনি যে কৃতজ্ঞ সেটি অপরপক্ষকে বুঝতে দিন।  তাকে বুঝতে দিন যে তার কারণে আপনার জীবনে কতটুকু শান্তি এসেছে।
  23. অন্যকে অপরাধী করবেন না।  এমন কিছু করার চেষ্টা করবেন না, যাতে অন্য ব্যক্তিটি নিজের পছন্দ, সিদ্ধান্ত বা কাজ নিয়ে অপরাধী বা ভুল করেছে মনে করে।
  24. প্রত্যাশার চেয়ে বেশি দেবার চেষ্টা করুন।  কখনও প্রতিশ্রুতি দেবেন না।  তবে উদারভাবে প্রত্যাশার চেয়ে বেশি দেবার চেষ্টা করবেন।
  25. পারস্পরিকভাবে উন্নয়ন হয় এমন সম্পর্ক গড়ে তুলুন।  কখনও নিয়ন্ত্রণ করবেন না, বা নির্ভরশীল হবেন না।  এমন সম্পর্ক সৃষ্টি করুন, যাতে উভয়পক্ষই পারস্পরিকভাবে উপকৃত এবং উন্নীত হয়।
  26. বৃহৎ হবার চেষ্টা করুন।  অন্যকে ছোট করে নিজে কৃতীত্ব নেবেন না অথবা প্রশংসা করার সময় নিজেকে আটকাবেন না।  যখন স্বীকৃতি দেবার প্রয়োজন হয় এবং যখন সাহায্যের প্রয়োজন হয় তখনই দিন।
  27. বিনয়ী হবার জন্য যথেষ্ট আত্মবিশ্বাস অর্জন করুন।  নিজের দুর্বলতা নিয়ে রসিকতা করার সামর্থ্য অর্জন করুন এবং ভুলত্রুটি স্বীকার করতে প্রস্তুত থাকুন।
  28. শেখার জন্য প্রস্তুত থাকুন।  নিজের অতিরিক্ত বুদ্ধি এবং উচ্চতা প্রদর্শন করবেন না।  স্বীকার করুন যে সবখানেই শেখার বিষয় আছে।  এমনকি জুনিয়রদের নিকট থেকেও শেখার আছে।
  29. অন্যের সাথে সম্পৃক্ত হোন, তবে জড়িয়ে যাবেন না।  অন্যের প্রতি আন্তরিক আগ্রহ প্রদর্শন করুন।  ‘আমি’ বলার চেয়ে ‘আপনি/তুমি’ শব্দটি বেশি ব্যবহার করুন।  মনযোগ দিয়ে শুনুন এবং প্রতিক্রিয়া দিন।
  30. উপহার দিন চাহিদা মোতাবেক।  শুধু ইমপ্রেস করার জন্য অথবা আপনার কাছে যা গুরুত্বপূর্ণ সেটি উপহার দেবেন না, অন্যের চাওয়ার বিষয়টিকে বিবেচনায় রাখুন।
  31. নিজেকে সবসময় চ্যালেন্জে রাখুন।  গড়পড়তা মানুষ হিসেবে আটকে থাকবেন না অথবা অতীতের সফলতায় সন্তোষ্টি নেবেন না।  নতুন নতুন সম্ভাবনার দিকে এগিয়ে যান এবং নিজের উৎসাহকে প্রয়োগ করুন।
  32. মানসিক চাপ থেকে দূরে থাকুন।  জীবনকে এমন সহজ রাখুন, যেখানে চাপ, হইহুল্লা বা মনযোগ নষ্ট হবার মতো কিছু থাকবে না।  চিন্তা এবং মনযোগ দেবার মতো পর্যাপ্ত সময় ও সুযোগ দিন।
  33. ‘বর্তমান মুহূর্তের’ অপরিমেয় ক্ষমতাকে কাজ লাগান।  এই মুহূর্তটির চেয়ে মূল্যবান আর কোন কিছুই নেই। এই সময়টিকে আপনার শ্রেষ্ট সময় করে নিন।
  34. হারানো বিষয় ফিরে পাবার চেষ্টা করবেন না।  আপনার নিয়ন্ত্রণের বাইরের কোন ব্যক্তি বা পরিস্থিতি নিয়ে চেষ্টা করবেন না।  উপযুক্ত সময় ও সুযোগের অপেক্ষা করুন।
  35. বিবর্তিত হতে থাকুন।  আত্ম-উন্নয়নের পথে চলুন এবং অধিকতর ভালো সুযোগের অপেক্ষায় থাকুন।
  36. মেনে নিন যে আপনি সকলের কাছে গ্রহণযোগ্য হতে পারবেন না।  আপনার উন্নয়ন হলে এবং আকর্ষণ বাড়লে, কিছু মানুষ আপনার দিকে মুখ ফেরাবে।  সেই কিছু মানুষগুলোই আপনার জন্য অভাবনীয় সফলতা এনে দেবে।

নিজেকে আকর্ষণীয় এবং গ্রহণযোগ্য করে তোলার জন্য আরও কি কোন বিষয় আপনার মনে আছে?  তবে সেটি মন্তব্যের ঘরে লেখে দিতে পারেন।

Advertisements

6 comments

  1. পিংব্যাকঃ ১১টি দক্ষতা, যা শেখা কঠিন কিন্তু জীবনের জন্য দরকারি | আওয়াজ দিয়ে যাই…

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s